Follow by Email

Search This Blog

Loading...

Wednesday, 23 December 2009

ষাটজনের সাক্ষ্য এবং আমার ভাষ্য

এই দেশ বড়ো বিচিত্র ততোধিক বিচিত্র এই দেশের মানুষ। এখানে মদের দামে ছাড় আছে কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের বইয়ের উপর ছাড় নাই!
লাগাম ছাড়া দামের মুক্তিযুদ্ধের বইগুলো কী তথাকথিত আঁতেলদের জন্য- এঁরা তো আবার সৌজন্য কপি পেয়ে থাকেন। এঁদের যে আবার সৌজন্য কপি না-দিলে জাতেই উঠা যাবে না!
বাহ রে, এঁরাই কেবল জানবেন, এরপর লম্বা-লম্বা বুলি কপচাবেন, আমরা ঘিলু অন্যত্র জমা রেখে হাঁ করে শুনব বুঝি! আর এঁরা না-পড়লে, দু-একটা কিনে ড্রয়ংরুমে ঘটা করে সাজিয়ে রাখবেন।

আমার ক্ষোভের বিস্তর কারণ আছে। মুক্তিযুদ্ধের উপর ছড়িয়ে-ছিটিয়ে সম্ভবত আমার কয়েক শ লেখা-পোস্ট আছে। এই লেখাগুলো লিখতে গিয়ে কখনও এমনও হয়েছে, ইচ্ছা করত পা ছড়িয়ে বসে কাঁদি। আগুনছোঁয়া এইসব বই কেমন করে কিনব? কী যে দাম একেকটা বইয়ের!

এদিক দিয়ে আমি ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালকে টুপি খুলে অভিবাদন জানাই, মাত্র ১০ টাকায় তিনি এক অসাধারণ কাজ করে ফেলেছিলেন।

প্রথম আলো ১৯৭১ সালের, বাংলা প্রতিলিপি 'ষাটজনের সাক্ষ্য' নামের ২৪ পৃষ্ঠার একটা জিনিস হামবড়া বিজ্ঞাপন দিয়ে বের করেছে। হ্যান-ত্যান, ম্যাট নাকি ফ্যাট কাগজ; এরা হয়তো বলবে, এটা মখমল দিয়ে মুড়িয়ে দেয়া হয়েছে তাই দাম ধাম করে বেড়ে গেছে। আরে, এর প্রয়োজন কী, এটা তো আসমানি কিতাব না যে এটাকে মখমল দিয়ে মুড়িয়ে তাকে রেখে দিলুম। মাঝে-মাঝে নামিয়ে চুমু খেলুম।
 

২৪ পৃষ্ঠার এই জিনিসটাকে চটি বলা যাবে না, না? কী বলব, চটা? ২৪ পৃষ্ঠার এই বেঢপ সাইজের জিনিসটাকে আসলে কী বলা যাবে এ নিয়ে ধন্ধে আছি। এই বেঢপ সাইজের জিনিস রাখব কোথায় এটা নিয়েও বড়ো বিপদে আছি, এটাকে কি কম্বলের মত গোল করে রাখব?
আমি তো চোরাই কাঠের ব্যাপারি না যে এই জিনিস রাখার জন্য এই সাইজের বেঢপ একটা বইয়ের তাক বানিয়ে ফেলব। আমি তো নব্য ধনি না যে ওই বেঢপ সাইজের তাকের বইয়ের আলমিরাটা রাখার জন্য ঘরের দেয়ালগুলোকে খানিকটা করে পিছিয়ে সরিয়ে দেব। যাগ গে, এই নিয়ে কস্তাকস্তি করে লাভ নাই, কোন উপায় না-পেলে এই বেঢপ জিনিসটা মাথায় নিয়ে বসে থাকব!

মুক্তিযুদ্ধের ধারক-বাহক প্রথম শ্রেণীর পত্রিকা, নাইব উদ্দিন আহমেদ এদের দৃষ্টিতে মুক্তিযোদ্ধা না কারণ তিনি প্রথম আলোর কাছ থেকে মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট সংগ্রহ করেননি। মুক্তিযুদ্ধের ধারক-বাহক, এরা মুক্তিযুদ্ধের বই বের করেছেন দাম নিয়ে উচ্চবাচ্য করার যো কই! ২৪ পৃষ্ঠার এই জিনিসটার দাম ৫০ টাকা হতে পারে কিনা এই নিয়ে যারা বই-টই ছাপেন এরা ভালো বলতে পারবেন। কিন্তু আমি আমার অল্প জ্ঞান নিয়ে বুঝি এটার দাম কোনক্রমেই ৫০ টাকা হতে পারে না। হলেও, প্রথম আলো দামটা কেন শেয়ার করতে পারল না? এদের মাথায় কি একবারও এই ভাবনা খেলা করল না, বইটার দাম ২০-২৫ টাকায় রাখি। ছাপার সংখ্যা বাড়িয়ে সাধারণ মানুষের হাতের নাগালে নিয়ে আসি? আসলে এই ভাবনা ভাবার এদের প্রয়োজন নাই:

"কুমিরের চোখের জলে ভেসে যায় গাল
গায়ে যে তার কুৎসিত লোভের ছাল।"


আহা, এদের যে আবার নাক-উঁচু, বেজায় লম্বা নাক! 'মিডিয়াওয়াচ' নামের ৩২ পৃষ্ঠার একটা নিউজপ্রিন্টের চমৎকার ম্যাগাজিন বের হয়। দাম কত শুনবেন? মাত্র ২ টাকা! তাও আবার ১ লাইন বিজ্ঞাপন নেই!

1 comment:

মুকুল said...

প্রথম আলো এখন এই দেশে আলোর একমাত্র ঠিকাদার। উনারা যা করবেন, তাই ভালো!